ICT কি? আইসিটির সুবিধা সমূহ ও বিস্তারিত।

0
82
ICT কি? আইসিটির সুবিধা সমূহ ও বিস্তারিত।
ICT কি? আইসিটির সুবিধা সমূহ ও বিস্তারিত।

বর্তমান সময়ে আমরা অনেক প্রযুক্তির উপর নির্ভর হয়ে পড়েছি। এতে ICT এর অকল্পনীয় অবদান রয়েছে। হয়তো আপনি ভাবছেন যে, আমি তো জানিই না যে, ICT কি? তাহলে কিভাবে বুঝবো ICT এর অবদান অকল্পনীয়? আচ্ছা যাইহোক, আজকে আমরা ICT এর বিস্তারিত শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত জানবো! তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

ICT কি ?

ICT এর পূর্ণরূপ কি? ICT এর পূর্ণরূপ হচ্ছে Information and communication technology । এর অর্থ তথ্য ও যোগাযোগ প্রুযুক্তি। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিকে সংক্ষেপে আইসিটি (ICT) বলা হয় । সুতরাং, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির আরেক নাম হচ্ছে আইসিটি।

ICT
ICT

ICT কি? ICT সংজ্ঞা দেওয়ার পূর্বে ২টি বিষয় সম্পর্কে জেনে রাখা দরকার।

১। তথ্য প্রযুক্তি (Information Technology)।

২। যোগাযোগ প্রযুক্তি (Communication Technology)।

২টি জিনিস আলাদা আলাদা এবং একে অপরের সাথে যুক্ত হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তির সাথে ব্যাবহার করা সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তিকেই তথ্য প্রযুক্তি বলা হয় এবং তথ্য আদান প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তিকেই যোগাযোগ প্রযুক্তি বলে।

তথ্য প্রযুক্তি ও যোগাযোগ প্রযুক্তিকে একত্রে ICT বলে। তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে দেশ এখন অনেক এগিয়ে। আমরা নানা ভাবে এর সাথে জড়িত। শুধু তাই নয়, যোগাযোগ প্রযুক্তি আমাদের জীবন অনেক সহজ করে দিয়েছে। যেমনঃ পৃথিবীর যেকোন প্রান্ত থেকে মুহূর্তের মধ্যেই কথা বলা যায়।

এটা কিভাবে সম্ভব হয়েছে? যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমেই আমরা সবার সাথে যোগাযোগ বজায় রাখতে পারতেছি। ১৯৮০ সালে সর্বপ্রথম ICT শব্দের কথা উচ্চারিত হয় এবং পরবর্তীতে ২০০০ সালে সর্বপ্রথম কোন পাঠ্যপুস্তকে ICT বিষয়টি যুক্ত হয়।

২০০০ সালের আগে ICT এর সাথে কেউ পরিচিত ছিল না। কারণ, এটি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ডিজিটাল একটি নাম। সমাজ পরিবর্তনে আইসিটির ভূমিকা অপরিসীম। বিজ্ঞানের যুগে একটি  দক্ষ সমাজ ব্যবস্থার অন্যতম কারিগর হচ্ছে আইসিটি। তথ্য প্রযুক্তি এবং যোগাযোগ প্রযুক্তি যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তা সত্যিই সম্ভাবনাময় একটি দৃষ্টান্ত ।

হয়তো অনেকেই এখনো এই বিষয়ে পরিষ্কার ভাবে বুঝতে সক্ষম হয়নি, চলুন একটু গভীরে যাই এবং বিস্তারিত সুন্দরভাবে জেনে নেওয়া যাক।

আমরা ইচ্ছে করলেই যেকোন মাধ্যমে যে কারো সাথে কথা বলতে পারি। যেমনঃ যোগাযোগ করার জন্য অন্যতম প্রধান মাধ্যমে হচ্ছে মোবাইল /  ল্যাপটপ। একবার ভেবে দেখুন আগের যোগাযোগ ব্যবস্থা আর এখনকার যোগাযোগ ব্যবস্থার মধ্যে কত তফাত তাইনা?

এখন আলোচনা করি তথ্য প্রযুক্তি নিয়ে,  আমরা বিভিন্ন উপায়ে তথ্য আহরণ, সংরক্ষন করে থাকি, সেটা হতে পারে যেকোন প্রযুক্তি ব্যাবহার করে! এই পুরো বিষয়টিই হচ্ছে তথ্য প্রযুক্তি।

আর এই তথ্য প্রযুক্তি এবং যোগাযোগ প্রযুক্তিকে মিলিত করে এর নাম দেওয়া হয়েছে আইসিটি। অতএব, ইলেকট্রনিক যন্ত্রের ব্যাবহার থাকা মানেই তো আইসিটি! ICT কিভাবে আমাদের জীবনকে কতদূর এগিয়ে নিয়ে গেছে! একবার ভাবুন তো ICT কিভাবে আমাদের জীবনকে বদলে ফেলেছে!

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির উপাদান বা ICT উপাদান-

আইসিটির সুবিধা বা অবদান
আইসিটির সুবিধা

তথ্য প্রযুক্তিতে কিছু মৌলিক উপাদান ব্যাবহার করা হচ্ছে। যা সকলের জন্য অনেক সুবিধাজনক। চলুন জেনে নেওয়া যাক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির মৌলিক উপাদান গুলো কি কি-

  •  কম্পিউটার / ল্যাপটপ।
  •  কম্পিউটার নেটওয়ার্ক।
  •  স্যাটেলাইট ।
  •  টেলিভিশন, ফ্যাক্স , রেডিও, আধুনিক টেলিযোগাযোগ।
  •  টেলেক্স।
  •  অডিও ভিডিও।
  •  মাইক্রোওয়েভ ।
  •  মডেম।
  •  কম্পিউটিং ইত্যাদি।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সুবিধা বা ICT সুবিধা-

এতক্ষণ তো আইসিটি নিয়ে অনেক বকবক করলাম! কিন্তু ICT সুবিধা কি? আইসিটি সুবিধা সম্পর্কে কারো অজানা থাকার কথা নয়! কারণ, এতক্ষণ থেকে যেসব বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে তাতে সকলেই অবশ্যই একটি সুন্দর ধারণা পাওয়ার কথা!

তবে যাইহোক আইসিটির ভূমিকা সম্পর্কে ছোট করে কিছু বলা ঠিক হবেনা। কারণ , এক কথায় আইসিটির অবদান অপরিসীম। আইসিটি ছাড়া আমাদের জীবন থমকে যাবে। কিভাবে ? চলুন তাহলে  আইসিটির সুবিধা গুলো জেনে নেওয়া যাক-

  •  আপনি কি জানেন যে, তথ্য প্রযুক্তি ব্যাবহার করার জন্য তথ্য স্থানান্তর করার গতি কতটা বৃদ্ধি পেয়েছে? হ্যাঁ আমি ঠিকই বলছি। আজকের এই দ্রুতগতির যোগাযোগ ব্যবস্থার যুগে ডেটা স্থানান্তর করার গতি কয়েকগুন বৃদ্ধি পেয়েছে।
  •  সময় এবং খরচ কম খরচ হচ্ছে। কারণ, খুব দ্রুত সময়ের মধ্যেই তথ্য আদান প্রদান করা যাচ্ছে ফলে সময় এবং খরচ ২টাই কম হচ্ছে।
  •  কাজ করার গতি দিন দিন বেঁড়েই চলেছে। যেমন মনে করুন, আগে যে কাজটি করতে ১ ঘন্টা সময় লাগতো সেই কাজটি এখন ১০ মিনিটে করা যায়।
  •  একসাথে অনেক সুবিধা মুহূর্তের মধ্যেই পাওয়া যাচ্ছে।
  •  মানুষের মধ্যে অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতা বেঁড়ে যাচ্ছে যা দক্ষ জনশক্তি গড়তে সাহায্য করছে।
  •  মানুষের পরিশ্রমের পরিমান খুবই কম হচ্ছে। প্রযুক্তি ব্যাবহারের মাধ্যমে অনেক কঠিন কাজ সহজে সম্পূর্ণ করা হচ্ছে।
  •  যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং তথ্য প্রযুক্তির উন্নতির ফলে ঘরে বসেই বহুমুখী সুযোগ সুবিধা পাওয়া সম্ভব হচ্ছে। যা সত্যি প্রশংসার যোগ্য।
  •  আমাদের মেধাশক্তি বিকশিত হচ্ছে।
  •  ঘরে বসে থেকেই লেখাপড়া করার জন্য অনলাইনে ক্লাস করা সম্ভব হচ্ছে। ফলে, কেউ অসুস্থ বা আসা সম্ভব না হলে বাসা থেকেই ক্লাস চালাতে পারছে।
  •  তথ্য সংগ্রহ ও বিতরণ এখন খুবই একটি সহজ কাজ।

এক কথায়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ছাড়া জীবনযাপন করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ছে। কারণ, একবার চিন্তা করুন তো, কত প্রকার সুযোগ সুবিধা অনলাইনে আমরা পাই। সেগুলো যদি না পেতাম তাহলে তো আবার সেই দাদার যুগে চলে যেতে লাগবে !

যাইহোক একটু মজা করলাম। তবে ICT এর গুরুত্ব বা অবদান অথবা সুবিধা যেটাই বলি না কেন, ICT এর অবদান অপূরণীয়। জীবনে বেঁচে থাকতে আইসিটির প্রয়োজনীয়তা কখনো শেষ হওয়ার নয়। ICT কিভাবে পৃথিবীকে বদলে ফেলেছে সেটা কিন্তু একটি সপ্নের মতই।

আজকের টপিক ছিল ICT কি? আইসিটির সুবিধা কি ? এগুলো সম্পর্কে বেসিক ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করছি বিষয়টি খুব সুন্দরভাবে বুঝতে সক্ষম হয়েছেন। পোস্টটি ভাল লাগলে শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন এবং ICT কি অথবা ICT কিভাবে মানবসমাজকে পরিবর্তন করেছে এই বিষয়ে আপনার কিছু জানার থাকলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করুন। আমরা আপনার প্রশ্নের উত্তর দিব।

আরো পড়ুন-

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.