লেবুর অপকারিতা। লেবুর ১৪টি ক্ষতিকর দিক!

0
58
লেবুর অপকারিতা। লেবুর ১৪টি ক্ষতিকর দিক!
লেবুর অপকারিতা। লেবুর ১৪টি ক্ষতিকর দিক!

লেবু দারুন একটি উপকারী ফল। যার মধ্যে অনেক ধরনের উপকারিতা রয়েছে। নিয়ম অনুসারে লেবু ব্যাবহার করলে অনেক ভাল ফলাফল পাওয়া সম্ভব কিন্তু আজকে আমরা লেবুর অপকারিতা নিয়ে আলোকপাত করবো ।

লেবুর উপকারিতা নিয়ে ইতিমধ্যেই আলোচনা করা হয়েছে। আপনি যদি লেবুর উপকারিতা সম্পর্কে না জেনে থাকেন তাহলে নিচের লিঙ্ক এ ক্লিক করে আগে লেবুর উপকারিতা গুলো জেনে নিন তারপর লেবুর অপকারিতা পোষ্টটি পড়ুন তাহলে বুঝতে অনেক সুবিধা হবে।

লেবুর অপকারিতা –

নিয়ম করে লেবু খেলে চমৎকার ফল পাওয়া যায়। কিন্তু অতিরিক্ত লেবু খেলেও বিপদ বেঁড়ে যায়! কোন কিছুই অতিরিক্ত ভাল নয়। সবকিছুর মধ্যেই লিমিট থাকা উত্তম কাজ।

অনেকেই দেখা যায় যে, ওজন বেঁড়ে গেছে, বয়সের ছাপ মুখে পড়তে শুরু করেছে, বিভিন্ন শারিরিক সমস্যার মধ্যে পড়তে হচ্ছে ফলে অতিরিক্ত লেবু খেতে শুরু করে। এটি মোটেও ঠিক নয়। আপনাকে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি সমূহ মেনে চলাচল করতে হবে। কতটুকু লেবু আপনার জন্য দরকার এবং আপনি কতটুকু খাচ্ছেন বিষয়টা চিন্তা করা দরকার।

লেবু
লেবু

এখন আলোকপাত করবো লেবুর অপকারিতা গুলো কি কি এবং কি পরিমান লেবু খেলে সেটাকে স্বাভাবিক খাওয়া বলা হয়।

লেবুর অপকারিতা-

  • অতিরিক্ত লেবুর রস খেতে থাকলে অ্যাসিডিটি সমস্যা দেখা দিবে। শুধু তাই নয় বুক জ্বালা পোড়া হওয়ার সম্ভাবনা অনেকগুন বেঁড়ে যায়। ফলে শরীরের নানা রকম প্রতিক্রিয়া দেখা দিবে। এই জিনিসটি অবশ্যই আমাদের মাথা্র মধ্যে রেখে লেবু খেতে হবে তাহলে লেবুর অপকারিতার প্রভাবগুলো থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব।
  • অনেকেই রয়েছে যাদের লেবুতে এলার্জি। যাদের লেবুতে এলার্জি রয়েছে তারা যদি লেবু খেয়ে রোদে্র মধ্যে বাহির হয় তাহলে তাদের স্কিনে লাল র‍্যাশ এর ছাপ দেখা যায়। এই সমস্যাকেই সানবার্ন বা সাইটোফোটোডার্মাটাইটিস বলা হয়ে থাকে। কিন্তু কেন এমন হয়? এর কারণ হচ্ছে, লেবুতে রয়েছে সাইট্রিক এসিড যা রোদের সাথে বিক্রিয়া করতে সক্ষম। যাদের এলার্জি রয়েছে তাদের মধ্যেই সানবার্ন সমস্যাটি দেখতে পাওয়া যায়।
  • অতিরিক্ত হারে লেবু খেতে শুরু করলে বমি বমি অনুভূতি হতে পারে এমনকি বমিও হয়। আপনার উচিৎ অতিরিক্ত লেবু খাওয়া থেকে দূরে থাকা।
  • বেশি লেবু খেলে শরীরে আয়রনের মাত্রা বেঁড়ে যায়। আমাদের শরীরে ভিটামিন সি এর দরকার আছে কিন্তু অতিরিক্ত কোন কিছু ভাল নয়। শরীরে ভিটামিন সি এর মাত্রা বেঁড়ে গেলে আয়রন এর মাত্রা বেঁড়ে যায়। ফলে অতিরিক্ত আয়রন শরীরের জন্য ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে। কাজেই, এ দিকে নজর রাখা উচিৎ।
  • লেবুতে রয়েছে সাইট্রিক এসিড যা দাঁতকে ক্ষয় করার অন্যতম প্রধান কারণ হয়ে দাড়াতে পারে। হ্যাঁ আপনি ঠিকই শুনেছেন। লেবু খাওয়ার মাত্রা বেশি হলে দাঁতের উপর এক ধরনের সাদা স্তর পড়ে যায়। ফলে পরবর্তীতে এটি দাঁত ক্ষয়ে যাওয়ার অন্যতম একটি কারণ হয়ে দাঁড়াবে। যারা নিয়মিতভাবে লেবু খান তারা দিনে ২ বার সকালে এবং রাতে ব্রাশ করবেন। এতে করে দাঁত ক্ষয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।
  • অতিরিক্ত সাইট্রিক এসিড শরীরের অনেক ক্ষতি করে । কারণ, পরবর্তীতে কিছু কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়।
  • আপনার কি মাইগ্রেন এর সমস্যা রয়েছে ? যদি আপনার মাইগ্রেন এর সমস্যা থাকে তাহলে আপনি লেবু না খাওয়ায় উত্তম। লেবুতে থাকে সাইট্রাস যা মাইগ্রেনের সমস্যা বাড়িয়ে দেয়। তাই যাদের এই সমস্যা আছে আপনারা লেবু খাওয়া থেকে বিরত থাকতে পারেন।
  • অতিরিক্ত লেবু খেলে স্কিন ক্যান্সার ও দেখা দিতে পারে। ফলে এটি হতে পারে আপনার জিবনের জন্য মারাত্মক ক্ষতির একটি কারণ। ব্লাডারের সমস্যা সৃষ্টির অন্যতম প্রধান হচ্ছে অতিরিক্ত হারে লেবু খাওয়া। বিশেষ করে, খুব বেশি গরম পানির সাথে লেবু মিশিয়ে খেলে এই সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে। ফলে বহুবিধ সমস্যা দেখা দেয়। যেমনঃ ঘনঘন প্রস্রাব, পেট ফাপা ইত্যাদি। তার মানে এটা নয় যে গরম পানিতে লেবু মিশিয়ে খাওয়া যাবে না।  গরম পানিতে লেবু মিশিয়ে খাওয়া যাবে তবে পানি যেন খুব হালকা গরম হয়।
  • প্রতিদিন অতিরিক্ত হারে লেবু খেতে শুরু করলে শরীরের দরকারী উৎসেচক পেপসিন ভেঙে যায়। পেপসিন আমাদের হজম প্রক্রিয়াকে খাবার হজম করতে সাহায্য করে। আর অতিরিক্ত লেবু খেলে লেবু থাকা সাইট্রিক এসিড পেপসিন কে ভেঙ্গে ক্ষতিকর এইনজাম সৃষ্টি করে। যার শরীরের জন্য খারাপ দিক।
  • অতিরিক্ত লেবু খেলে ডিহাইড্রেশনের সমস্যায় পড়তে পারেন। কারণ, লেবুতে থাকা ভিটামিন সি শরীরে ইউরিনেশনের মাত্রা বেশি করে।
  • ক্যালসিয়াম এর ওষুধ খেলে লেবুর রস খাবেন না। এটি ক্ষতিকর প্রভাব ফেলবে।
  • লেবুর রস ত্বকে বেশি ব্যাবহার করতে শুরু করলে ত্বকের জন্য খারাপ প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
  • লেবুতে থাকা সাইট্রিক এসিডের ফলে আমাদের শরীরে এসিডের পরিমান বেঁড়ে গেলে তা হতে হুমকির কারণ। অতিরিক্ত এসিডের ফলে আলসার হওয়ার সম্ভাবনাকে একবারে উড়িয়ে দেওয়া যাবে না।
  • গর্ভবতীরা খুব বেশি লেবুর রস খাবেন না এবং সপ্তাহে ২-৩ দিন খেতে পারেন তবে অল্প পরিমানে।

লেবুর অপকারিতা গুলো কি কি এবং লেবুর অপকারিতা সম্পর্কে তো জানা হল। এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগবে যে, প্রতিদিন কি পরিমান লেবু আমাদের খাওয়া উচিৎ?

কিভাবে লেবু খাবেন?
কিভাবে/কি পরিমান লেবু খাবেন!

গরম পানির সাথে লেবু খেলে খেয়াল রাখবেন পানি যেন কম গরম হয় এবং পারলে সাথে একটু মধু মিশিয়ে খাবেন। প্রতিদিন লেবু খেতে পারেন তবে পরিমান যেন কম হয়। তবে দিনে ১১৫-১২০ মিলি লিটারের বেশি লেবুর রস খাওয়া যাবে না। এমনিতেই স্বাভাবিক পরিমাণে লেবু খেলে কোন সমস্যা হবে না। তবে জেনে রাখা ভাল, অতিরিক্ত কোন কিছুই সাস্থের জন্য ভাল দিক হতে পারে না।

পোষ্টটি শেয়ার করুন এবং অন্যকে জানার সুযোগ করে দিতে পারেন। লেবুর অপকারিতা সম্পর্কে পোষ্টটি পড়ে আপনার কেমন লাগল?  আপনার মন্তব্য কমেন্ট বক্সে জানাতে ভুলবেন না!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.